সিঙ্গাপুর সম্পর্কে বিষ্ময়কর কিছু তথ্য, এখনি জেনে নিন

বর্তমান পৃথিবীতে টিকে থাকা তিনটি নগর রাষ্ট্র এর মধ্য একটি হচ্ছে সিংগাপুর। বাকি দুটি মোনাকা ও ভাটিকান সিটি। সিংগাপুর ব্যাপকভাবে নরায়িত একটি দেশ। সিংগাপুর দেশটি এতটাই ছোট যে এর আয়তন বাংলাদেশের তুলনায় ২০১ গুণ ছোট।

আরো সহজভাবে বলতে গেলে সম্পূর্ণ সিংগাপুরের আয়তন আমাদের ঢাকা শহড়ের দেড় গুণ। এত ছোট হওয়ার পরেও সিংগাপুর দেশটি পৃথিবীর মধ্যে সবচেয়ে উন্নত ও ব্যায়বহুল দেশের একটি। আমাদের আজকের পোস্টে সিংগাপুর সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য উপস্থাপন করা হলো।

দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দ্বীপ রাষ্ট্র সিঙ্গাপুর। এটি মালয় উপদ্বীপের দক্ষিণ প্রান্তে মালয়শিয়া ও ইন্দোনেশিয়ার মাঝখানে অবস্থিত। সিংগাপুর শব্দের উতপত্তি সংস্কৃত শব্দ সিংগাপুরা থেকে। যার অর্থ সিংহ পুর। সিংহের শহড় নামে পরিচিত হলেও এই শহরে কোন সিংহ নেই। এবং অতীতেও কখনো ছিলো না।

কিন্তু তারপরেও সিঙ্গাপুর বাসী মনে করে এটি তাদের গর্ব ও বীরত্বের প্রতীক। সিঙ্গাপুরে একটি পৌরনিক কাহিনী প্রচলিত আছে যে অনেক আগে এই সমুদ্র নগরীতে একবার বিশাল ঝড় আসে। তখন এই ভয়ংকর ঝড় থেকে বাচার জন্য সব মানুষ নিজেদরকে সৃষ্টিকর্তার কাছে সপে দেয়।

ঠিক তখনি সমুদ্র থেকে অর্ধেক সিংহ ও অর্ধেক মাছের আকৃতির বিশাল এক জন্তু এসে সবাইকে ঝড় থেকে রক্ষা করে। সেই থেকে মাল্ডার নামক সিংহ মাছ সিঙ্গাপুর বাসীর বীরত্বের প্রতীক। প্রায় ৬০ টিরও বেশি ছোট ছোট দ্বীপ নিয়ে সিংগাপুর গঠিত হয়।

১৯৬৩ সালে সিঙ্গাপুর মালয়শিয়ায় যুক্ত থাকা অবস্থায় বৃটিশ দের কাছে থেকে স্বাধীনতা লাভ করে। এরপর ১৯৬৫ সালে সিঙ্গাপুর এর অনিচ্ছা থাকা সত্বেও মালয়শিয়া সিঙ্গাপুর কে আলাদা করে দেয়। এবং সিঙ্গাপুর স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে আত্বপ্রকাশ করে।

স্বাধীনতার পর থেকে দেশটির রাজনৈতিক ব্যাবস্থা নিয়ন্ত্রণ করে আসছে পিপল সেকশন পার্টি। এখন পর্যন্ত কোন নির্বাচনেই দলটি ৬০ শতাংশের কম ভোট পায় নি। বর্তমান সিঙ্গাপুরের জনসংখ্যা ৫৮ লক্ষ ৫২ হাজার।

সিঙ্গাপুরের সরকার বিভিন্ন জায়গা থেকে মাটি এনে সমুদ্র ভরাট করে প্রতিনিয়ত সিঙ্গাপুরের আয়তন বাড়িয়ে চলেছে। ৬০ এর দশকে সিঙ্গাপুরের আয়তন ছিলো ৫৮২ বর্গ কিলোমিটার। কিন্তু বর্তমানে সিঙ্গাপুরের আয়তন প্রায় ৭১৮ বর্গকিলোমিটার।

“মেরিনা বে স্যান্ডস” হচ্ছে সিঙ্গাপুরের সবচেয়ে বিলাসবহুল হোটেল এবং একইসাথে এটিই বিশ্বের সবথেকে একক দামী ক্যাসিনো। নির্মান খরচের হিসেবে এটিই বিশ্বের চতুর্থ ব্যাবহুল ভবন। পঞ্চান্ন তলার এই হোটেলটির উপরের তলায় রয়েছে পৃথিবীর সবচেয়ে দীর্ঘতম সুইমিংপুল।

সিঙ্গাপুরের জনসংখ্যার ৭৫ শতাংশ চীনা বংশোদ্ভূত। দীর্ঘদিন বৃটিশ দের অধীনে থাকার কারণে সিঙ্গাপুরের বেশিরভাগ লোক ইংরেজীতে কথা বলে। এছাড়া এখানে আরো তিনটি দাপ্তরিক ভাষা রয়েছে। সেগুলো হচ্ছে মালয়, চীনা ম্যান্ডারিন ও তামিল। সিঙ্গাপুরে ৬ টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে। এর মধ্য ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অফ সিঙ্গাপুর বিশ্বের সেরা ২০ টি বিশ্ববিদ্যালয় গুলোর মধ্য একটি।

এখানকার শিক্ষা ব্যাবস্থা সম্পূর্ণই ইংরেজী নির্ভর। অত্যন্ত জনবহুল হওয়ার পরও সিঙ্গাপুর পৃথিবীর সবচেয়ে পরিচ্ছন্ন ও স্বাস্থ্যকর শহড় গুলোর একটি। যার কারনে সিঙ্গাপুরের মানুষদের গড় আয়ু অনেক বেশি। এখানে পুরুষদের গড় আয়ু ৭৯ বছর এবং নারীদের প্রায় ৮৪ বছর।

সুয়েজ খাল চালু হওয়ার পর থেকে এশিয় ও ইউরোপীয় বাণিজ্য বেড়ে যায়। যার ফলে সিঙ্গাপুর বন্দর হয়ে উঠে অন্যতম বাণিজ্যের কেন্দ্র। সিঙ্গাপুর স্বাধীন হওয়ার মাত্র ২ দশকের মধ্যে উন্নত দেশে রুপান্তরিত হয়। সিঙ্গাপুরের বর্তমান মাথাপিছু আয় ৮২,৭৬২ মার্কিন ডলার।

পৃথিবীর প্রধান ৩ টি ব্যাবহুল শহড় হচ্ছে সিঙ্গাপুর, হংকং এবং প্যারিস। হংকং কে অনেকেই দেশ মনে করে থাকে। কিন্তু হংকং চীনের একটি প্রশাসনিক অঞ্চল। আর প্যারিস কে বলা হয় ভালোবাসা ও সংস্কৃতির নগরী।

আরো দেখুনঃ 

যুক্তরাজ্য এবং যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে পার্থক্য !

সাহাবী গাছ সম্পর্কে অজানা সব তথ্য এবং বিস্তারিত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *